কষ্টার্জিত জয়ে সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল দক্ষিণ আফ্রিকা

সুপার এইটে টানা দুই ম্যাচ জিতল দক্ষিণ আফ্রিকা। গতকাল রাতে ইংল্যান্ডকে বিপক্ষে ৭ রানে জিতে সেমিফাইনালের দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে গেল এইডেন মার্করামের দল। এ নিয়ে এবারের বিশ্বকাপে টানা ৬টি ম্যাচে জিতল দক্ষিণ আফ্রিকা।

আজ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টসে জিতে রান তাড়া করার সিদ্ধান্ত নেয় জস বাটলারের দল; কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৬ উইকেটে ১৬৩ রানে থামিয়েও সে রান টপকাতে পারেনি বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। রান তাড়ায় ইংল্যান্ডের ইনিংস থেমেছে ৬ উইকেটে ১৫৬ রানে।

বাটলারদের ইনিংসের শুরুটাই ভালো হয়নি। দ্রুত রান আসেনি, উইকেটও হারিয়েছে। ১০.২ ওভারে ৬১ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। সেখান থেকে ইংল্যান্ডকে জয়ের আশা দেখায় হ্যারি ব্রুক (৩৭ বলে ৫৩ রান) ও লিয়াম লিভিংস্টোন (১৭ বলে ৩৩ রান) জুটি। দুজন মিলে ৪২ বলে ৭৮ রান যোগ করে সমীকরণটা নিয়ে আসে ১৮ বলে মাত্র ২৫ রানে; কিন্তু কাগিসো রাবাদা, মার্কো ইয়ানসেন ও আনরিখ নর্কিয়া শেষ তিন ওভারে দিয়েছেন মাত্র ১৭ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন রাবাদা ও কেশব মহারাজ।

এর আগে ওপেনার কুইন্টন ডি ককের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে ভালো শুরু পায় প্রোটিয়া। ২২ বলে অর্ধশতক করেন এই বাঁহাতি। ভয়ংকর হয়ে ওঠা এই বাঁহাতিকে থামানোর সুযোগও হাতছাড়া করে ইংল্যান্ড। নবম ওভারে আদিল রশিদের গুগলিতে স্লগ সুইপে ছক্কা মারতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় হওয়ায় মার্ক উডের হাতে ধরা পড়েন ডি কক। ভাগ্য ভালো, তিনি ক্যাচটি ধরার সময় বল মাটি স্পর্শ করায় টিভি আম্পায়ার নট আউট ঘোষণা করেন।

পরের ওভারে অবশ্য মঈনের বলে লং অনে ক্যাচ তোলেন আরেক ওপেনার রিজা (২৫ বলে ১৯ রান)। তাতে ডি ককের সঙ্গে ৫৯ বলে ৮৬ রানের জুটির সমাপ্তি ঘটে। ১২তম ওভারে আর্চারের বলে থামে ডি ককের ৩৮ বলে ৪টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৬৫ রানের ইনিংস। শেষের দিকে ডেভিড মিলারের ২৮ বলে ৪৩ রানের ইনিংস প্রোটিয়াদের রানটা দেড় শর ওপারে নিতে বড় ভূমিকা রাখে।

Leave a Reply