জয়ের ছন্দে চেন্নাই, মুস্তাফিজের দুই শিকার

প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত বোলিং করে চেন্নাই সুপার কিংসের জয়ের নায়ক ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। তবে, দ্বিতীয়টিতে এসে মুস্তাফিজ হয়ে গেলেন কিছুটা খরুচে। যদিও তাতে প্রভাব পড়েনি দলের ওপর। বড় সংগ্রহ নিয়ে হেসেখেলেই জিতেছে চেন্নাই সুপার কিংস।

আইপিএলে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে গুজরাট টাইটান্সকে ৬৩ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে চেন্নাই। দলের জয়ের ম্যাচে ৪ ওভার করে মুস্তাফিজ খরচ করেছেন ৩০ রান। তবে, শেষদিকে দুই উইকেট নিয়ে সেটা ঠিকই পুষিয়ে দিয়েছেন কাটার মাস্টার।

আজ মঙ্গলবার (২৬ মার্চ)  চেন্নাইয়ের এম চিদাম্বারাম স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ২০৬ রান তোলে চেন্নাই। ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন শিবাম দুবে। ম্যাচ সেরাও তিনি।

জবাব দিতে নেমে ১৪৩ রানেই থেমে যায় গুজরাট। বড় রান তাড়ায় জয় তো দূরে কাছাকাছিও যেতে পারেনি দলটি। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেন সুদর্শন। বাকিরা ব্যস্ত ছিলেন আসা-যাওয়ার মিছিলে।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ব্যাট হাতে দারুণ শুরু করেন দুই ওপেনার রাচীন রবীন্দ্র ও ঋতুরাজ গায়কোয়াড়। এই দুইজনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বড় সংগ্রহের ভিত পায় চেন্নাই। দলীয় ৬২ রানের মাথায় রাচীনের বিদায়ে প্রথম ধাক্কা খায় চেন্নাই। ২০ বলে ৪৬ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলে সাজঘরে ফেরেন এই ব্যাটার। তার বিদায়ের পর অজিন্কা রাহানেকে নিয়ে ফের দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে যান গায়কোয়াড়। এই দুইজনের জুটিতে ভর করে ১০ ওভারে দলীয় স্কোর ১০০ ছাড়ায় দলটির। যদিও ১০৪ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন রাহানে। ১২ বলে ১২ রানের বেশি করতে পারেননি তিনি।

দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়লেও গায়কোয়াড়ের ব্যাটে সেই চাপ সামলে নেয় চেন্নাই। দলীয় ১২৭ রানের মাথায় ফেরেন গায়কোয়াড়। আউটের আগে করেন ৩৬ বলে ৪৬ রান। এরপর ড্যারিল মিচেল ও শিবাম দুবের ব্যাটে দারুণ জুটি গড়ে চেন্নাই। এই দুইজনের ব্যাটে যোগ হয় ৩৫ বলে ৫৭ রান। দলীয় ১৮৪ রানে দুবে ফিরলেও পরের ব্যাটারদে দৃঢ়তায় রানের পাহাড় গড়ে চেন্নাই।