৬দিনের ভারী বর্ষণে মাটির ঘর চাপা পড়ে দিনাজপুরে চারজন এবং ঠাকুরগাঁওয়ে একজনের মৃত্যু।

টানা ৬দিনের ভারী বর্ষণে মাটির ঘর চাপা পড়ে দিনাজপুরে একই পরিবারের চারজন এবং ঠাকুরগাঁওয়ে একজনসহ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে পলাশবাড়ী ইউনিয়নের ঝাউপাড়া গ্রামে ঘুমন্ত অবস্থায় মাটির ঘরের দেয়াল চাপা পড়ে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানসহ একই পরিবারের চারজনের মৃত্যু হয়। এছাড়া ঠাকুরগাঁওয়ে মাটির ঘর ভেঙে মারা যান মতিউর রহমান নামে একজন। এদিকে কুড়িগ্রামে আজও ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ২৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে। পাশাপাশি বাড়ছে দুধকুমার, ফুলকুমার, তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্রের পানিও। তবে সিরাজগঞ্জের নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করায় জেলার বন্যা পরিস্থিতি ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে।